Banner Advertiser

Thursday, March 30, 2017

[mukto-mona] Re: {PFC-Friends} মুসলিম শাসকরা ধর্মান্তরে বাধ্য করালে ভারতে হিন্দুই থাকত না’: অধ্যাপক শেলডন পোলক

19th century British historians writing into Indian history their own 'beneficial' presence in India began the anti-Islam propaganda which the Hindutwavadiwaallahs propagate with much glee.  Here's my response to one fight with a Dalit professor  who kept citing his Guru Toynbee giving his preference for Buddhism as the BEST religion.

Toynbee's Grocery List

Readers' Opinion / News From Bangladesh
Toynbee's grocery list

Tuesday October 12 2004 15:57:05 PM BDT

Farida Majid

That Arnold Toynbee's sense of history was heavily tinged by all varieties of colonial activities all around him is marked by his grocery list of religions and the bag in which he casually tosses them, namely religious tolerance, yet another European colonial construct.

We must acknowledge what is patently wrong with this exercise if we are to prevent ourselves indulging in it and perpetuating its odious consequences. Let us begin with a few hard facts. Before the advent of Buddhism in 6th century BC, Hinduism was not a very organized religion, certainly not in the sense the moderns understand what a religion is, or ought to be. Beyond the innermost circle of the Aryavarta, the rest of India was not even Hinduized.

Then came the spread of Buddhism on the crest of India's great empire under the Emperor Ashok, the first of India's three great empires, none of which, as Amartya Sen never tires of reminding us, was Hindu.

It was during these Buddhist centuries in India that the Hindu scholars, writers and thinkers produced scholarly works of great beauty and of enduring philosophical value as if in an effort to put our own house in order. The Bhagabat Gita is a product of this period, and it shows profound influence of Buddhism, even as a polemic to Buddhism, in its philosophical stance.

In Toynbee's grocery list, Islam and Christianity are similarly placed on the same aisle of the supermarket of religion, and almost on the same shelf. Though by arithmetic count Islam is some 700 yrs younger than Christianity, Islam established itself as a global religion several centuries before Christianity arrived in these lands, their missionaries riding on the shoulder of European colonialism.

All over the rest of the world, Islam somehow adapted and accommodated itself to local cultures, never, in any instance, changing the local language to Arabic. In Europe, though, the scene was very different in the Middle Ages. Arabic became a very important language of higher learning whether one was a Christian, Jew or Muslim. Recent scholarship has revealed that the very founding of Oxford University was largely dependent on the wealth of collection of manuscripts and books on Arabic learning and sciences.

From the evidence of literature produced in Europe in the few pre-Islamic centuries, we can deduce that Christianity was not on a very solid grounding, neither among the general populace, nor among the learned in the Monasteries, before the advent of Islam. Among the learned there was the lingering nostalgia for the classical Greek and Roman learning. It was the rise of Islam that solidified Christianity in Europe incorporating thereby, in the very fiber of European Christianity, an enmity towards Islam, always depicting it as a threat.

Toynbee's, or any other's depiction of Islam being an ˜intolerant religion in the past' has to be taken with a grain of salt of the earth. The colonial purpose for devising the concept of "religious tolerance" was to present themselves as neutral to the so-called communal enmity between the Hindus and Muslims, which the colonial masters invented and manipulated themselves.

Kind regards.
Farida Majid

From: <> on behalf of Post Card <>
Sent: Thursday, March 30, 2017 7:20 AM
To:;; Jalal Khan; Muazzam Kazi; Mohamed Nazir; Mohammad Gani; Zoglul Husain; rashed Anam
Subject: {PFC-Friends} মুসলিম শাসকরা ধর্মান্তরে বাধ্য করালে ভারতে হিন্দুই থাকত না': অধ্যাপক শেলডন পোলক

'মুসলিম শাসকরা ধর্মান্তরে বাধ্য করালে ভারতে হিন্দুই থাকত না': অধ্যাপক শেলডন পোলক

29 Mar, 2017

যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত বুদ্ধিজীবী ও ভাষাতাত্ত্বিক অধ্যাপক শেলডন পোলক বলেছেন, মুসলমান শাসকরা জোর করে ধর্মান্তর করালে ভারতে একজনও হিন্দু থাকত না। কারণ, মুসলমান শাসকরা ভারতে প্রায় বারোশো বছর রাজত্ব করেছিলেন।


পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকায় বুধবার প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

নিজেকে 'ইহুদি ব্রাহ্মণ' বলেন পরিচয় দেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে দক্ষিণ এশিয়া চর্চার অধ্যাপক শেলডন পোলক। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মূর্তি ক্লাসিকাল লাইব্রেরি ইন্ডিয়া প্রকল্পের সাধারণ সম্পাদক তিনি। সম্প্রতি জয়পুর লিটারারি ফেস্টিভ্যালে এসেছিলেন পোলক।

পোলককে প্রশ্ন করা হয় যে 'অনেকে বলেন, ইসলামি আক্রমণের পর সংস্কৃতের পতন হল, শাসকের দাপটে সবাই উর্দু, ফার্সি শিখতে ছুটল।'

জবাবে তিনি বলেন, 'বাজে কথা। তোমাদের বাংলার নবদ্বীপ বা মিথিলা সংস্কৃত ন্যায়চর্চার কেন্দ্র হয়েছিল সুলতানি আমলে। দারাশিকো বেদান্ত পড়ছেন বারাণসীর পণ্ডিতদের কাছে। মুসলমান শাসকরা এ দেশে প্রায় বারোশো বছর রাজত্ব করেছিলেন। তারা জোর করে ধর্মান্তর করালে এ দেশে একজনও হিন্দু থাকত না। তাদের উৎসাহ না থাকলে সংস্কৃতও টিকে থাকত না। ধর্মের সঙ্গে ভাষার উত্থানপতন গুলিয়ে তাই লাভ নেই।'

সংস্কৃত এবং ধ্রুপদী সাহিত্য চর্চায় ভারত কী ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারে জানতে চাইলে সমসাময়িক বুদ্ধিবৃত্তিক ইতিহাস ও সংস্কৃতি ভাষার এই পণ্ডিত বলেন, চাই মুক্ত, বহু স্বরকে সম্মান করার মতো পরিবেশ। সংস্কৃতকে কোনো নির্দিষ্ট বর্ণের মানুষ সংরক্ষণ করেনি, সমাজের সব অংশের সেখানে ভূমিকা রয়েছে। কোনো ডিভাইসিভ, এক্সক্লুশনারি, মেজরিটারিয়ান রাজনীতি তাই সংস্কৃতের অন্তরায়। দরকার সকলকে নিয়ে মুক্ত আনন্দের সৃষ্টিশীল পরিবেশ। পরাজিতের বিষণ্ণতাবোধ থেকে সংস্কৃত পড়া যায় না, দরকার বহু স্বরের বহু স্তরের আনন্দের উপলব্ধি।'

তিনি বলেন, প্রথমেই রাষ্ট্রীয় সংস্কৃত সংস্থান নামে কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানটির খোলনলচে বদলাতে হবে। ব্রাহ্মণ, অব্রাহ্মণ, মুসলিম, দলিত সব মিলিয়ে ভারতে কত জন সংস্কৃত পড়ে? কোনো পরিসংখ্যান নেই। তবু আমার ধারণা, সাড়ে সাত কোটি। সংখ্যাটা তিন কোটি হতে পারে, দশ কোটিও! এই সাড়ে সাত কোটি ছাত্র কী শেখে, কতটুকুই বা শেখে? কিচ্ছু না। তাদের দোষ নেই, শেখানোর লোক কোথায়? ফলে প্রথমেই দরকার আন্তর্জাতিক মানের একটি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ক্লাসিকাল স্টাডিজ। এ দেশে এত আইআইটি, আইআইএম! সবাই ডাক্তারি, ইঞ্জিনিয়ারিং আর ম্যানেজমেন্ট পড়তে ছুটছে। কিন্তু ধ্রুপদী সাহিত্যচর্চার একটা কেন্দ্র নেই? সেখানে মেধার চর্চা হবে, সেরা লোকেরা পড়াবেন ও গবেষণা করবেন। তখনই দ্বিতীয় প্রজন্মের স্কলারেরা তৈরি হবেন। এটাই সবচেয়ে জরুরি।'

উৎসঃ rtnn

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

See more
যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত বুদ্ধিজীবী ও ভাষাতাত্ত্বিক অধ্যাপক শেলডন পোলক বলেছেন, মুসলমান শাসকরা জোর করে ধর্মান্তর করালে ভারতে একজনও হিন্দু থাকত না। কারণ, মুসলমান শাসকরা ভারতে প্রায় বারোশো

You received this message because you are subscribed to the Google Groups "PFC-Friends" group.
To unsubscribe from this group and stop receiving emails from it, send an email to
For more options, visit


Posted by: Farida Majid <>

Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:




"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190