Banner Advertiser

Saturday, January 14, 2017

[mukto-mona] Monem Khan . . . collaborator : রাজাকার নামাঃ গভর্নর আব্দুল মোনায়েম খান



Monem Khan . . . collaborator 

Monem Khan with Ayub Khan2

So the family of Abdul Monem Khan would like people to believe the late governor of erstwhile East Pakistan is a martyr! That is indeed interesting. One could in the same breath suggest that the Vichy regime in France was a team of patriots, that those who upheld apartheid in South Africa were guided by love of country, that Ian Smith of Rhodesia and Kurt Waldheim of Austria were men who loved their countries and their people in immeasurable manner.

Monem Khan, we have been informed by his family through the school it runs in Mymensingh, was murdered by dacoits, bandits in proper English, in 1971. You are reminded here of the times when the Nationalists ruling China under the leadership of Chiang Kai-shek — and that was before they lost everything in 1949 — routinely referred to Mao Zedong and his dedicated communists as bandits out to destroy everything in the land. In the Monem Khan case, the sheer audacity and the absolute shamelessness of his family are remarkable. Where the families of other collaborators of the Yahya-Tikka junta have largely remained contritely silent over the dark doings of their loved ones in 1971, the children of Monem Khan have continued to spew the bad notion that their father was a great man done in by lawless brigands.

Let us, once again, set the record straight for the young and also for those of our generation — we were politically aware teenagers during the War of Liberation — who may be tempted to fall prey to selective amnesia or go for a sudden 'reappraisal' of history. Abdul Monem Khan was among the many little known or absolutely unknown politically inclined Bengalis who in the early 1960s became enamoured of the self-styled Field Marshal Mohammad Ayub Khan, enough to find berths in his regime. Monem was appointed a minister in the central government led by Ayub and on the removal of Ghulam Faruque from the governorship of East Pakistan was chosen as the new satrap of the province by the military ruler.

Abdul Monem Khan

Monem Khan was, in comparison with others who preceded or succeeded him in the governor's mansion in Dhaka, hugely lucky. His fawning nature paid off. He remained governor of East Pakistan all the way from 1962 to 1969. In his endless efforts to remain in the good books of Ayub Khan, he routinely made sure that a goodly part of the budgetary allocation for East Pakistan was returned to the centre because, in his view, all that money was not necessary. Ayub Khan loved him, as a father would love an extremely obedient child.

Viciousness towards the foes of the regime was a hallmark in Abdul Monem Khan. He was obsessed with Sheikh Mujibur Rahman, with dark thoughts about the future Bangabandhu. His infamous remark that Mujib would remain in prison as long as he was governor has not been forgotten. Throughout his term as governor, Monem Khan made sure that the future founding father of the state of Bangladesh was compelled to move from one town to another, from one city to another, obtaining bail from a variety of courts as the authorities clamped one arrest order after another on him. Monem Khan dreaded Sheikh Mujibur Rahman. In the event, Bangabandhu emerged free from incarceration more than a month before Ayub Khan was forced to find a new governor for an increasingly restive East Pakistan. At the public rally Bangabandhu addressed at the Race Course on 23 February 1969, a day after his release, he demanded that Ayub Khan take his 'patwari' Monem Khan to Rawalpindi. Dr. M.N. Huda replaced Monem Khan on 24 March 1969, but could serve as governor only for two days. Late in the evening on 25 March 1969, General Yahya Khan replaced Field Marshal Ayub Khan as Pakistan's new military ruler.

There are other reasons why Monem Khan will not be forgotten in the history of our part of the world. He belonged to the generation that included the myopic Khwaja Shahabuddin, Ayub Khan's minister for information and broadcasting instrumental in convincing his president that a ban on Rabindranath Tagore would go a long way in quelling rising Bengali nationalistic aspirations. Monem Khan went along with the idea, in the false belief that forbidding Bengalis from listening to Rabindrasangeet would inculcate in them the 'necessary' Pakistan ideology as they prepared to step into the future. Tagore was banned in 1967. The consequence was, ironically, a reassertion of his poetry and music in Bengali homes and social gatherings. In effect, the ban served as a renewal of the Tagore spirit in East Pakistan, soon to be — in four years' time — the sovereign republic of Bangladesh.

Abdul Monem Khan, never losing an opportunity to demonstrate his arrogance as governor, once reportedly tried to be smart with a Bengali member of the Pakistan civil service. When he informed the gentleman that he would not be a member of the CSP cadre if Pakistan had not come into being, the officer swiftly put him in his place thus: 'Governor, if Pakistan had not come into being, I would be part of the Indian civil service. But if Pakistan had not come into being, you would not be governor.'

Monem Khan with Ayub Khan
Abdul Monem Khan with Ayub Khan

The ban clamped on Tagore music did not unduly worry Monem Khan. He asked a reputed Bengali composer if he could not compose Rabindrasangeet rather than depend on Tagore. The composer, with an evident smirk at the governor's ignorance, retorted that in that case it would be sangeet in his name, not in Tagore's.

Monem Khan was never a loved figure in power or out of it. The extent to which he was held in contempt by his fellow Bengalis was demonstrated all too well in 1964 when, despite warnings from his staff and the intelligence services, he turned up at the convocation of Dhaka University. The predictable happened. Students refused to accept certificates from him. In no time, pandemonium was let loose, with chairs being thrown about and slogans being raised against Monem Khan by the students. Security personnel and university officials quickly hustled an angry and defiant governor out of the campus.

Abdul Monem Khan was among those Bengalis who cheerfully lent their services to the genocidal Pakistani military regime in 1971. All of them were to pay the wages of their sins, in their different ways. Monem Khan was liquidated by the Mukti Bahini at his home in Dhaka's Banani area as the tempo of the War of Liberation rose. The day was 13 October 1971.

Syed Badrul Ahsanis a bdnews24.com columnist.

http://opinion.bdnews24.com/2017/01/15/monem-khan-collaborator-martyr/

রাজাকার নামাঃ গভর্নর আব্দুল মোনায়েম খান


মোনায়েম খান শহীদ! | 174869 | Bangladesh Pratidin

Oct 6, 2016 ১৯৬২ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর নিযুক্ত হয়েছিলেন মোনায়েম খান। ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানে তার পতন হয়। মোনায়েম.

অপারেশন মোনায়েম খান প্রসঙ্গে মোজাম্মেল হক বীর প্রতীক

 এক গুলিতেই সফল


Dec 17, 2014 - 'একাত্তরের ১৪ অক্টোবর ভোরে বাড়ির বাংলোঘরে শুয়ে আছি। মালেক চাচা (ভাটারার আবদুল মালেক মাস্টার) জোরে জোরে দরজা ধাক্কাচ্ছেন। দরজা খুলতেই বললেন, 'রাইতে আকাম কইরা শুইয়া আছ। মোনায়েম খান মারা গেছে। মিলিটারি বাড়িত আইল, তাড়াতাড়ি বাড়িত থেইকা বাইর-হ।' তখনই নিশ্চিত হলাম আমার গুলিতেই মারা গেছেন পূর্ব ...

নিহত 'জঙ্গিদের' মধ্যে মোনায়েম খানের নাতি - bdnews24.com

Jul 28, 2016আজীবন পাকিস্তানের পক্ষে থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী মোনায়েম খানের এক নাতিকে পাওয়া গেছে ঢাকার কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের ... তাজ মঞ্জিলে অভিযানে নিহত নয় যুবকের মধ্যে আকিফুজ্জামান খান (২৪) মুক্তিবাহিনীর হাতে নিহত মোনায়েমখানের নাতি বলে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের জানান ...


   

   


__._,_.___

Posted by: "Jamal G. Khan" <M.JamalGhaus@gmail.com>


****************************************************
Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:

http://mukto-mona.com/wordpress/?p=68

http://mukto-mona.com/banga_blog/?p=585

****************************************************

VISIT MUKTO-MONA WEB-SITE : http://www.mukto-mona.com/

****************************************************

"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190





__,_._,___

[mukto-mona] নোবেল শান্তি পুরস্কারের কোনো গ্রহণযোগ্যতা আর আছে কি



নোবেল শান্তি পুরস্কারের কোনো গ্রহণযোগ্যতা আর আছে কি

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী১৫ জানুয়ারী, ২০১৭ ইং
নোবেল শান্তি পুরস্কারের কোনো গ্রহণযোগ্যতা আর আছে কি
নোবেল পুরস্কার, বিশেষ করে শান্তি পুরস্কার তার সকল গৌরব হারিয়েছে। নোবেল পুরস্কারের প্রবর্তক আলফ্রেড নোবেল আজ বেঁচে থাকলে হয়তো ঘৃণার সঙ্গে তার নামটি এই পুরস্কারের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকতে দিতেন না, প্রত্যাহার করে নিতেন। গত ১০ ডিসেম্বর নরওয়ের রাজধানী অসলোতে এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট জুয়ান মানুয়েল সান্তোষকে। এ পর্যন্ত সবই ঠিক ছিল। কিন্তু এর একটি অনুষ্ঠানেও আমেরিকার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জারকে শান্তির দূত আখ্যা দিয়ে সম্মানিত অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল নরওয়ের নোবেল শান্তি পুরস্কার ইনস্টিটিউট এবং অসলো ইউনিভার্সিটি।

ফলে বিশ্বের বহু দেশে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে অভিযুক্ত হেনরি কিসিঞ্জারকে শুধু নোবেল শান্তি পুরস্কার দেওয়া নয়, তাকে পুরস্কার দানের একটি অনুষ্ঠানে শান্তির দূত আখ্যা দিয়ে আমন্ত্রণ জানানোর দরুন দারুণ প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। নরওয়ের নোবেল শান্তি পুরস্কারদানের কমিটি এই প্রতিবাদের পরোয়া করবেন বলে মনে হয় না। তারা জেনেশুনেই এ কাজটি করেছেন। এর আগেও শান্তি পুরস্কারদানে এই ধরনের ভণ্ডামির আশ্রয় তারা নিয়েছেন। প্যালেস্টাইনের মুক্তি সংগ্রামের নেতা ইয়াসির আরাফাতের সঙ্গে ইসরায়েলের যুদ্ধাপরাধী প্রধানমন্ত্রীর গলায় একই শান্তি পুরস্কারের পদক তারা পরিয়ে দিয়েছিলেন।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট জুয়ান সান্তোষকে ২০১৬ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কারে সম্মানিত করা অনেকের কাছেই ভালো লেগেছে। ১৯৬৪ সাল থেকে কলম্বিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলেছে। সরকার ও সামরিক বাহিনীর সঙ্গে প্রধান গেরিলা বাহিনী ফার্ক ও বামপন্থি দলগুলোর সমন্বয়ে গঠিত মোর্চার রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চলছিল। তাতে গরিব সাধারণ মানুষের জীবনে অশান্তি ও দুর্দশা চরমে পৌঁছেছিল। প্রেসিডেন্ট সান্তোষ এই যুদ্ধের অবসান ঘটিয়েছেন। গত ২৪ নভেম্বর তিনি কিউবার রাজধানী হাভানাতে গেরিলাদের সঙ্গে একটি শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করেছেন। চুক্তিটি কলম্বিয়ার পার্লামেন্টে অনুমোদন পেয়েছে ১ ডিসেম্বর।

চুক্তিটিতে অনেক ত্রুটি আছে। তবু কলম্বিয়ার বামপন্থিদের একাংশের অসন্তোষ সত্ত্বেও এই শান্তিচুক্তি দেশটিতে শান্তি ফিরিয়ে এনেছে বলে অনেকেই সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। প্রেসিডেন্ট জুয়ান মানুয়েল সান্তোষ এই চুক্তিতে গেরিলা বাহিনীর প্রত্যেক যোদ্ধাকে সম্পূর্ণ নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিয়েছেন। এই চুক্তি দেশ-বিদেশের অনেক মানুষকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে সম্পাদিত পার্বত্য (চট্টগ্রাম) শান্তি চুক্তির কথা মনে পড়িয়ে দেবে। কলম্বিয়ার শান্তি চুক্তির মতোই এটিও ছিল একটি ঐতিহাসিক চুক্তি। ব্রিটেনের যুদ্ধবাজ সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার পর্যন্ত বাংলাদেশের পার্বত্য শান্তি চুক্তির ঐতিহাসিকতা স্বীকার করে প্রশংসা করেছিলেন।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট মানুয়েল নোবেল শান্তি পুরস্কার পেয়েছেন, তাতে কারো আপত্তি নেই। আপত্তি হেনরি কিসিঞ্জারের মতো বিতর্কিত ব্যক্তির অতীতে এই পুরস্কার পাওয়ায় এবং আবার এই পুরস্কার দান-সংক্রান্ত অনুষ্ঠানে তাকে শান্তির দূত আখ্যা দিয়ে সম্মানিত অতিথি হিসেবে ডেকে আনায়। নরওয়েরই একটি রাজনৈতিক দল কিসিঞ্জারকে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে অভিযুক্ত করে দেশের আদালতে মামলা করেছে এবং নরওয়ের মাটিতে কিসিঞ্জার পা দিলে তাকে সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার করার দাবি জানিয়েছিল। এই দাবিতে গলা মিলিয়েছে ইউরোপের অন্যান্য দেশেরও শান্তিকামী মানুষ ও সংগঠন।

দেশ-বিদেশের এই প্রতিবাদের মুখেও নরওয়ের নোবেল শান্তি পুরস্কার ইনস্টিটিউট ও অসলো ইউনিভার্সিটি কেন বেছে বেছে হেনরি কিসিঞ্জারকেই বিশ্ব শান্তির দূত হিসেবে বার বার সম্মান জানাচ্ছেন, তা এক বিস্ময়কর ব্যাপার। ফলে এই পুরস্কারের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বহু দেশ। তাদের মধ্যে রয়েছে চীন। শুধু চীন নয়, বিশ্বের বেশকিছু দেশ এখন মনে করে, পশ্চিমা শক্তি কর্তৃক তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনের জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কার ও সাহিত্য পুরস্কার দুটিরই অতি অপব্যবহারের ফলে এই পুরস্কার শুধু গ্রহণযোগ্যতা নয়, তার সকল মর্যাদা হারিয়েছে।

এর একটি সাম্প্রতিক উদাহরণ হলো, ২০০৯ সালে ৫৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তি লিও জিয়াওবো সন্ত্রাসী কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকার অপরাধে চীনের আদালত কর্তৃক ১১ বছরের জন্য কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন। পরের বছর ২০১০ সালে নোবেল কমিটি শান্তি পুরস্কার দানের জন্য তাকে মনোনীত করে। চীন এর তীব্র প্রতিবাদ জানায়। সেবার এই প্রতিবাদে কণ্ঠ মিলিয়েছিলেন নরওয়ে সরকারও। এখন পশ্চিমা দেশগুলোতেই অভিযোগ উঠেছে, আমেরিকার নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী জোটের আধিপত্য রক্ষা ও প্রসারের সামরিক বাহু যেমন ন্যাটো, অর্থনৈতিক বাহু বিশ্বব্যাংক, তেমনি সাংস্কৃতিক বাহু হচ্ছে নোবেল শান্তি ও সাহিত্য পুরস্কার।

দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পর নোবেল শান্তি ও সাহিত্য পুরস্কার ধীরে ধীরে তার গ্রহণযোগ্যতা ও মর্যাদা হারায় এবং স্নায়ুযুদ্ধে (cold war) পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদীদের উদ্দেশ্য পূরণের হাতিয়ার হয়ে ওঠে। গত শতকে সোভিয়েট ইউনিয়নকে বিব্রত করার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে রুশ লেখক বরিস পাস্তেরনাককে তার 'ড. জিভাগো' বইয়ের জন্য নোবেল সাহিত্য পুরস্কার দেওয়া হয়। তা নিয়ে রুশ-মার্কিন স্নায়ুযুদ্ধ তুঙ্গে ওঠে। এখন তো প্রমাণিত হয়েছে ড. জিভাগো বইটির সাহিত্য মূল্য তেমন নেই। সোভিয়েত শাসনব্যবস্থার সমালোচনা করাতেই পশ্চিমা ব্লকের কাছে এই বইটির কদর বেড়েছিল এবং সিআইএ'র গোপন অর্থ সাহায্যে ইউরোপে বইটি প্রকাশ করা হয়েছিল।

নোবেল শান্তি পুরস্কার ইনস্টিটিউট বহু যুদ্ধাপরাধী ও মানবতার শত্রুকে এই শান্তি পুরস্কার দিয়ে শুধু পুরস্কারটির নয়, নিজেরাও মর্যাদা হারিয়েছেন। কিসিঞ্জারকে শান্তির দূত বলা ও শান্তি পুরস্কার দেওয়া এই পুরস্কারের গ্রহণযোগ্যতা একেবারেই নষ্ট করেছে। কলকাতায় দ্য স্টেটসম্যান পত্রিকায় এক কলামিস্ট লিখেছেন, নরওয়ের নোবেল কমিটি অতীতে যুদ্ধবাজ হেনরি কিসিঞ্জারকেও বিশ্ব নোবেল শান্তি পুরস্কার দিয়ে নিজেদের আবার হাস্যাস্পদে পরিণত করেছিল।

হেনরি কিসিঞ্জারের নামটি বাংলাদেশের মানুষের কাছে অতি পরিচিত। ১৯৭১ সালে আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে এই লোকটিই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধিতা করেছেন এবং পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীকে বাংলাদেশে গণহত্যায় সমর্থন জুগিয়েছেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর যখন বঙ্গবন্ধুর সরকার যুদ্ধবিধ্বস্ত অর্থনীতি পুনর্গঠনে ব্যস্ত, তখন এই কিসিঞ্জারই বিদ্রূপ করে বলেছিলেন, বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি।

জার্মানির এক ইহুদি পরিবারে তার জন্ম। ১৯৩৮ সালে অভিবাসী হিসেবে আমেরিকায় আসেন এবং নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন। কম্বোডিয়ায় গণহত্যা, ইন্দোনেশিয়ায় সুকর্নের আমলে গণহত্যা, পূর্ব তিমুরে ধ্বংসযজ্ঞ, বাংলাদেশ ও চিলিতে রক্তের প্লাবন সৃষ্টি, আলেন্দে ও মুজিব-হত্যা ইত্যাদি অসংখ্য ঘটনার সঙ্গে কিসিঞ্জারের নাম জড়িত। এজন্যেই এখন প্রশ্ন উঠেছে এমন এক ব্যক্তিকে নোবেল শান্তি পুরস্কার ইনস্টিটিউট কেমন করে একবার শান্তি পুরস্কার দেওয়ার পর আবার এ বছর সসম্মানে আমন্ত্রণ জানাল অসলো ইউনিভার্সিটির প্রধান সভাকক্ষে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ে ভাষণদানের জন্য? এই ব্যাপারে লন্ডনের একটি বামপন্থি সাপ্তাহিক প্রশ্ন তুলেছেন, হিটলার যদি আজ বেঁচে থাকতেন, তাহলে তাকেও কি আজ এই আমন্ত্রণ জানানো হতো? দুর্ভাগ্য হিটলারের। তিনি ইহুদি ছিলেন না। ছিলেন ইহুদিবিদ্বেষী।

'গরিবের কথা বাসি হলে ফলে', নোবেল শান্তি পুরস্কার যে তার গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে, একথা আমি বহুদিন আগে লিখেছিলাম, যখন বাংলাদেশের এক স্বনামধন্য ব্যাংকারকে এই পুরস্কার দেওয়া হয়। গরিবকে চড়া সুদে ঋণ দিয়ে অতি মুনাফার ব্যবসা করা ছাড়া বিদেশে দূরে থাক, তার নিজের দেশেও শান্তি প্রতিষ্ঠায় তার কণামাত্র অবদান নেই। তবু তাকে দেওয়া হয়েছিল নোবেল শান্তি পুরস্কার। অবশ্য পুরোটা নয়, অর্ধেকটা। বাঙালি হিসেবে তাতে আমার গর্ববোধ করার কথা। কিন্তু গর্ববোধ না করে আমি এর রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বুঝতে পেরে তখনই এই পুরস্কারের গ্রহণযোগ্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছি। ব্যাংকিং বা অর্থনৈতিক কোনো বিষয়ে তাকে পুরস্কার না দিয়ে শান্তি পুরস্কারে তাকে ভূষিত করা হলো কেন?

বুঝতে বাকি থাকেনি, এর পেছনে ছিল পশ্চিমা শক্তির রাজনৈতিক উদ্দেশ্য। এই নোবেল জয়ীর ছিল আওয়ামী লীগ ও হাসিনাবিরোধী অবস্থান। তাকে সাহায্য করাই ছিল তখনকার মার্কিন প্রশাসনের এক শক্তিশালী ব্যক্তির উদ্দেশ্য। নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পরই এই স্বনামধন্য ব্যাংকার নোবেল পুরস্কারের মাদুলি গলায় ঝুলিয়ে রাজনীতিতে ঢোকার এবং নেতৃত্ব গ্রহণের চেষ্টা করেন। তার পেছনে সায় ছিল তখনকার আধা সামরিক সরকারেরও। তখন বাংলাদেশে রাজনৈতিক তত্পরতা নিষিদ্ধ ছিল। কিন্তু এই নোবেলজয়ী এই নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই প্রকাশ্যে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। কিন্তু এই দল বাংলাদেশের রাজনীতিতে অশ্বডিম্ব ছাড়া আর কিছু হতে পারেনি।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট মানুয়েল তার দেশের গেরিলাদের সঙ্গে শান্তি চুক্তি করায় নোবেল শান্তি পুরস্কার পেয়েছিল তাতে আমি আনন্দিত। কিন্তু এই শান্তি চুক্তির পাশাপাশি আমরা যদি বাংলাদেশে শেখ হাসিনা কর্তৃক সম্পাদিত পার্বত্য শান্তি চুক্তির কথা বিবেচেনা করি, তাহলে দেখা যাবে, এই চুক্তি কলম্বিয়ার চুক্তির মতোই সমান গুরুত্বপূর্ণ এবং বিশ্ব শান্তি রক্ষার ক্ষেত্রে বিরাট অবদান রেখেছে। এ জন্যে শেখ হাসিনারও কি নোবেল শান্তি পুরস্কার পাওয়া উচিত ছিল না? নাকি তিনি পশ্চিমা স্বার্থ ও আধিপত্যের কাছে নতজানু নন বলেই নোবেল শান্তি পুরস্কার ইনস্টিটিউটের দৃষ্টি তার দিকে পড়েনি? এই পুরস্কার হয়তো একদিন শেখ হাসিনা পাবেন। কিন্তু তখন তার গ্রহণযোগ্যতা আর পুনরুদ্ধার করা যাবে কি?

লন্ডন ১৪ জানুয়ারি, শনিবার, ২০১৭



__._,_.___

Posted by: AbdurRahim Azad <Arahim.azad@gmail.com>


****************************************************
Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:

http://mukto-mona.com/wordpress/?p=68

http://mukto-mona.com/banga_blog/?p=585

****************************************************

VISIT MUKTO-MONA WEB-SITE : http://www.mukto-mona.com/

****************************************************

"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190





__,_._,___

[mukto-mona] Fw: লন্ডন প্রবাসী বিনপি-জামাতি জগলুলের জঘন্য মিথ্যাচার ফাস




The amazing character of the ex-pat BD Zindabadis --  this bunch of fawning motley-minded haggards and their addiction to lies . . .


From: Mannan Sarkar <sarkar_mannan@yahoo.com>
Sent: Sunday, January 15, 2017 12:19 AM
To: Rajakar Zoglul
Subject: লন্ডন প্রবাসী বিনপি-জামাতি জগলুলের জঘন্য মিথ্যাচার ফাস
 

রাজীব গান্ধী'র বাড়ি গাইবান্ধায়

গাইবান্ধা প্রতিনিধি | আপডেট: 
'রাজীব গান্ধী'র বাড়ি গাইবান্ধায়







গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার অন্যতম 'পরিকল্পনাকারী' জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে 'রাজীব গান্ধী'র বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের মালঞ্চা গ্রামে। তাঁদের আদি বাড়ি পাশের সাঘাটা উপজেলার পদুমশহর ইউনিয়নের রাঘবপুর ভুতমারা (চকদাতেয়া) গ্রামে।
আজ শনিবার জাহাঙ্গীর আলমের গ্রাম মালঞ্চায় গিয়ে এসব তথ্য পাওয়া যায়। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে জাহাঙ্গীর আলমকে টাঙ্গাইল থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মালঞ্চা গ্রামের মৃত ওসমান মুনশির ছেলে জাহাঙ্গীর। ওসমান মুনশি কাঠমিস্ত্রির কাজ করতেন। তিনি স্থানীয় একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলেন। প্রায় তিন বছর আগে তিনি মারা যান। ওসমান মুনশির দুই স্ত্রী। জাহাঙ্গীর প্রথম স্ত্রী রাহেলা বেগমের ছেলে।
প্রায় ১৩ বছর আগে রাহেলা বেগম ওরফে হালিমা তাঁর সন্তানদের নিয়ে মালঞ্চা গ্রামে বসবাস শুরু করেন। রাহেলা বেগম অন্যের বাড়িতে কাজ করতেন। তিন ভাই দুই বোনের মধ্যে জাহাঙ্গীর তৃতীয়। তাঁর বড় ভাই আবু তাহের (৪২) গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শহরে ভাড়া বাসায় থেকে ফার্নিচারের ব্যবসা করেন। দ্বিতীয় ভাই আলী হোসেন (৩৮) মালঞ্চা গ্রামে পৃথক বাড়িতে থাকেন। তিনি রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। দুই বোন রেজওয়ানা খাতুন ও সান্ত্বনা খাতুনের বিয়ে হয়েছে। জাহাঙ্গীর আলমের দুই ছেলে এক মেয়ে।
শনিবার দুপুরে গাইবান্ধা শহর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে মালঞ্চা গ্রামে গিয়ে জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে গ্রামবাসী ও আশপাশের লোকজন বলেন, জাহাঙ্গীরের মা আজ (শনিবার) সকালে মেয়ের বাড়ির কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন। তাঁরা আরও বলেন, জাহাঙ্গীর পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে রাজমিস্ত্রির কাজ শুরু করেন। তিনি এই বাড়িতে নিয়মিত থাকতেন না। রাতে আসতেন আবার সকালে চলে যেতেন।
একপর্যায়ে পুলিশ ওই গ্রামে জঙ্গি অভিযান শুরু করলে জাহাঙ্গীর পরিবার নিয়ে গা ঢাকা দেন। জাহাঙ্গীর আলমের বড় ভাই আবু তাহের বলেন, 'ভাইকে গ্রেপ্তারের কথা শুনেছি। প্রায় তিন থেকে সাড়ে তিন বছর ধরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে জাহাঙ্গীর বাড়ি থেকে চলে যায়। তার সঙ্গে আমাদের পরিবারের কোনো যোগাযোগ নেই।' আবু তাহের আরও বলেন, 'জাহাঙ্গীরের কর্মকাণ্ডের কথা শোনার পর থেকে আমরা তাকে ঘৃণা করি। সে অন্যায় করে থাকলে তার শাস্তি হোক, সেটা আমরা চাই।'
গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত সরকার বলেন, দীর্ঘদিন ধরে জাহাঙ্গীর আলম জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে যুক্ত। এ ছাড়া গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি ভোরে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শহরের মধ্যপাড়া এলাকার ব্যবসায়ী তরুণ দত্ত (৩৮) এবং গত ২৫ মে সকালে একই উপজেলার মহিমাগঞ্জ বাজারের জুতা ব্যবসায়ী দেবেশ চন্দ্র প্রামাণিক (৬৮) হত্যা মামলার আসামি। এই দুই হত্যা মামলার অভিযোগপত্রে জাহাঙ্গীরের নাম আছে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিলেন।
http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/1059371/%E2%80%98%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A7%80%E0%A6%AC-%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A7%80%E2%80%99%E0%A6%B0-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BF-%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A6%BE%E0%A7%9F
www.prothom-alo.com
গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার অন্যতম 'পরিকল্পনাকারী' জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে 'রাজীব গান্ধী'র বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের মালঞ্চা গ্রামে। তাঁদের আদি বাড়ি পাশের সাঘাটা উপজেলার পদুমশহর ইউনিয়নের রাঘবপুর ভুতমারা (চকদাতেয়া)...



NOW THIS IS WHAT BNP-JAMAAT'S ZOGLUL FROM UK SENT IN SEPT 20, 2016:
From: Zoglul Husain (zoglul@hotmail.co.uk)

গুলশান ও শোলাকিয়া সন্ত্রাসে ভারতের যোগসূত্রঃ ডিবি  
মমতা ব্যানার্জি ২ অক্টোবর ২০১৪-এর বর্ধমান বিস্ফোরণের প্রসঙ্গে বলেন, বর্ধমান বিস্ফোরণ ও জেএমবি আক্রমণ এ সবই 'র'-এর সাজানো নাটক বা মিথ্যা-পতাকা আক্রমণ। মমতা বলেন, আমি ২৩ বছর কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলাম, কাজেই কে কি করে তা আমার জানা আছে। মমতার বক্তব্য ছাড়াও আমরা জানি জেএমবি ভারতের সৃষ্টি, আর হুজি-বা ইসরাইলের সৃষ্টি। বাংলাদেশের যত সন্ত্রাসী কার্যাবলী তার প্রায় সবই ভারতের সাজানো নাটক বা মিথ্যা-পতাকা আক্রমণ। 

এবার বাংলাদেশের পুলিশও স্বীকার করল গুলশান ও শোলাকিয়া হামলায় জড়িত অস্ত্র ও জঙ্গির সঙ্গে ভারতের যোগসূত্র রয়েছে। "কাউন্টার টেরিজিম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদ করে অনেক তথ্য মিলেছে। এটা নিশ্চিত যে, গুলশান ও শোলাকিয়া হামলায় জড়িত জঙ্গিদের ব্যবহৃত অস্ত্র ভারত হয়েই বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।" (নীচে দেখুন)  

Tuesday, 20 Sep 2016
হিন্দু জঙ্গির পরিকল্পনায় বাংলাদেশে হামলা, অস্ত্র ও আশ্রয়দাতা ভারত: ডিবি
তাজউদ্দীন: 
www.newsbd7.com
তাজউদ্দীন: রাজধানীর গুলশানের রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজানে জঙ্গি ...


সংবাদ বর্ণন নিম্নরূপঃ  



রাজধানীর গুলশানের রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার অন্যতম পরিল্পনাকারী রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস গান্ধী ওরফে শান্ত'র ছবি প্রকাশ করেছে তদন্ত সংস্থা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিট।

সোমবার রাতে তদন্ত সংস্থা থেকে গুলশান হামলার অন্যতম এই পরিকল্পনাকারীর ছবি সংগ্রহ করা হয়েছে।

আমরা ঘটনার পরপরই অনুসন্ধানী সংবাদের মাধ্যমে তথ্য, প্রমাণ ও আইউইটনেস পর্যালোচনা করে জানিয়েছিলাম গুলশান জঙ্গি হামলার পরিকল্পনায় ছিল ভারত। ধীরে ধীরে সে তথ্যই প্রমাণিত হতে যাচ্ছে। যদিও শেখ হাসিনার সরকার সঠিক তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ করবে না। কিন্তু ক্ষমতার পরিবর্তনে সব সত্য বের হয়ে আসবে। তবে সব সত্যতো আর ধামাচাপা দেয়া যায় না সে কারণে যতটুকু সত্য উন্মোচিত হয়েছে তাতেই প্রমাণ হয়ে গেছে বাংলাদেশে ঘটা সকল গুপ্তহত্যা ও জঙ্গি ঘটনার জঙ্গিরা অস্ত্র এনেছে ভারত থেকে। জঙ্গিরা আশ্রয় নিয়েছে ভারতে। ভারত থেকেই হামলার পরিকল্পনা করেছে।

কাউন্টার টেরিজিম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদ করে অনেক তথ্য মিলেছে। এটা নিশ্চিত যে, গুলশান ও শোলাকিয়া হামলায় জড়িত জঙ্গিদের ব্যবহৃত অস্ত্র ভারত হয়েই বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

মনিরুল ইসলাম জানান, অস্ত্রের যোগানদাতা কে বা কারা তা জানার চেষ্টা চলছে। আরও যাদের নাম বিভিন্ন ঘটনায় উঠে এসেছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।

তিনি বলেন, গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলার জন্য প্রায় ১৩ লাখ টাকা হুন্ডির মাধ্যমে এসেছে। ইতোমধ্যে অর্থের যোগানস্থল নিশ্চিত হওয়া গেছে। জড়িত দু'একজনের নামও জানা গেছে। 

মনিরুল আরও জানান, নতুন চারজন জঙ্গি হলো- রিপন, খালিদ, বাসারুল্লাহ এবং রাজীব গান্ধী। এদের মধ্যে বাসারুল্লাহ এবং রাজীব গান্ধী দেশেই আছে আর রিপন ও খালিদ গত এপ্রিল মাস থেকে ভারতে পালিয়ে আছে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর রেজাউল ইসলাম হত্যার পর তারা পালিয়ে যায়। এরপর তারা দেশে ফিরেছেন এমন কোন তথ্য নেই পুলিশের কাছে।

হিন্দু জঙ্গি রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস গান্ধী ওরফে শান্ত হচ্ছে উত্তরাঞ্চলের কমান্ডিং পর্যায়ের নেতা। গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলার আগে যখন জানতে পারলেন, হামলার জন্য প্রশিক্ষিত জনশক্তি দরকার। তখন রাজীব গান্ধী গুলশান হামলার জন্য দুজন এবং শোলাকিয়ায় হামলার জন্য একজন প্রশিক্ষিত জঙ্গিকে সরবরাহ করেন। যারা উভয় হামলার ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যান।

রাজীব গান্ধী এখন কোথায় আছে জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, রাজীব গান্ধী গোয়েন্দা তথ্যমতে উত্তরাঞ্চলের কোনো একটি জেলায় আত্মগোপন করে আছে। তাকে ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

তিনি বলেন, গাইবান্ধার চরে কয়েক বছর আগে যেসব জঙ্গি প্রশিক্ষণ নিয়েছিল তাদের মধ্যে রাজীব গান্ধী, তামীম চৌধুরী, মেজর মুরাদ, তানভীর কাদেরী ওরফে করিম, বাসারুল্লাহ, মারজান, রিপন, খালিদ অন্যতম ছিল। এদের মধ্যে বেশির ভাগ জঙ্গিই বিভিন্ন অভিযানে মারা যায়।

মনিরুল ইসলাম বলেন, একাধিক অভিযানে নব্য জেএমবির কমান্ডিং পর্যায়ের নেতারা নিহত হওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে, নব্য ধারার জেএমবির ৬০-৭০ শতাংশ শক্তি ক্ষয় হয়েছে। কিন্তু এখনো বাসারুল্লাহ, মারজান আর গান্ধীর মতো সংগঠক যারা দেশে আছে, তাদের ধরতে না পারলে এখন ঝুকিতে আছি আমরা। তবে দেশে আর যাতে এ ধরণের কোন হামলা না ঘটে সেইজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা প্রস্তুত রয়েছে। তবে এখন মারজান বা গান্ধি ছাড়া আরও দুজন ইন্ডিয়ায় পালিয়েছে। রাজশাহীর প্রফেসর রেজাউল করিম হত্যার পর রিপন ও খালিদ নামে দুজন গত এপ্রিলে ইন্ডিয়ায় পালিয়ে যায়। তবে তাদের দেশে ফিরে আসার খবর এখনো পাওয়া যায় নি।

দেখা যাচ্ছে, জঙ্গিদের সাথে ভারতের সারসরি সম্পর্ক রয়েছে। ভারত তাদের আশ্রয় ও অস্ত্র দিয়ে সাহায্য করছে। যদিও এখন তারা বাংলাদেশ নিয়ে খেলতে খেলতে নিজেরাই জঙ্গি হামলার মুখে নাস্তানাবুদ অবস্থায় রয়েছে। তাদের ১৮ জন সেনাকর্মকর্তাকে হত্যা করেছে মাত্র ৪ জন বীরস্বাধীনতাকামী কাশ্মিরী যোদ্ধা। বাংলাদেশকে জঙ্গি ইস্যুতে বিশৃঙ্খল করে রেখে রামপালের মতো চুক্তি, পোশাক খাতকে ধ্বংস করা এবং সবশেষে বাংলাদেশকে সিকিমের মতো অঙ্গরাজ্যে পরিণত করতে চায় ভারত।


__._,_.___

Posted by: Farida Majid <farida_majid@hotmail.com>


****************************************************
Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:

http://mukto-mona.com/wordpress/?p=68

http://mukto-mona.com/banga_blog/?p=585

****************************************************

VISIT MUKTO-MONA WEB-SITE : http://www.mukto-mona.com/

****************************************************

"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190





__,_._,___

Re: [mukto-mona] It is about time! Play Russian card with China before ruthless Chinese dictates the world



I have been trying to understand how Russia could be enemy of USA. I could not find any good logical reason for the narrative being promoted by McCain-Graham. They often bring the Crimean invasion by Russia to justify their claim.
If you look at the perspective of Russian invasion of Crimea, you will see, when USA interfered with the political process in Ukraine, which resulted the removal of pro-Russian President of the Ukraine, that, obviously, affected Russian interest in the Ukraine and Crimea. Crimea, being Russian ethnical majority, preferred Russian annexation than being an autonomous region of Ukraine. This is what triggered Russian invasion of Crimea. So, Crimean invasion by Russia was, in fact, provoked by US interference in Ukraine.
So, my conclusion is McCain-Graham outrage over Russia is the narratives of the lobbyists for the US arms manufacturers and dealers.
The similar narrative is also used by ISI-Military-complex in Pakistan, in which - India is the perpetual enemy of Pakistan.
Jiten Roy



From: "DeEldar shahdeeldar@gmail.com [mukto-mona]" <mukto-mona@yahoogroups.com>
To: mukto-mona@yahoogroups.com
Sent: Saturday, January 14, 2017 10:05 AM
Subject: [mukto-mona] It is about time! Play Russian card with China before ruthless Chinese dictates the world

 
Opening with China was great but time has changed. Only Russia, Japan and Indian troika with Uncle Sam can put this commie beast in its right place. Otherwise more Chinese islands would be built in major oceans for China to claim all major oceans. What can smaller countries can do against Chinese thugs?
US might have been a bad superpower, but China would the worst. Trump sees but MaCain gang don't. Lets see whether Trump can outmaneuver MaCain gang?

http://www.bbc.com/news/world-us-canada-38621025




__._,_.___

Posted by: Jiten Roy <jnrsr53@yahoo.com>


****************************************************
Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:

http://mukto-mona.com/wordpress/?p=68

http://mukto-mona.com/banga_blog/?p=585

****************************************************

VISIT MUKTO-MONA WEB-SITE : http://www.mukto-mona.com/

****************************************************

"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190





__,_._,___

Re: [mukto-mona] [CTI] Building Bridges--editorial of Delhi weekly the Radiance [2 Attachments]

[Attachment(s) from Jiten Roy included below]



Major wars ended 10 years back, and wars are not causing problems any longer. Now, world's major problems are rooted in the ethnic/communal/civil unrests. Example, ISIS initiated civil/ethnic unrest has displaced millions of their own people; who do we held responsible for this ethnic/communal crisis?

Jiten Roy


 




From: "'darmanar' darmanar@darmanar.org [mukto-mona]" <mukto-mona@yahoogroups.com>
To: mukto-mona@yahoogroups.com
Sent: Wednesday, January 11, 2017 2:14 AM
Subject: [mukto-mona] [CTI] Building Bridges--editorial of Delhi weekly the Radiance

 
 
Yahoo Mail.® shah_abdul_hannan@yahoo.com [Criterion-The-Illuminator] <Criterion-The-Illuminator-noreply@yahoogroups.com>
Mon, Jan 9, 2017 at 2:20 PM
Reply-To: Criterion-The-Illuminator-owner@yahoogroups.com
To: Criterion-The-Illuminator@yahoogroups.com
 
 
EDITORIAL

Building Bridges

8 Jan 2017 logo 0 commentsShare |      
Right from the dawn of humanity, when we were only two, Adam and Eve, up to now, when we are a teeming 740 crore, there has been a fundamental need of building bridges: bridges of mutual love, respect, understanding and cooperation.
It is natural for humans to cooperate with each other because man is born as an individual, but at no time in his life he can be alone. The very nature of life demands from him to be in society as its member.
We were created as the first pair of a male and a female, then we were made into nations and communities to know, respect and help each other. But unfortunately, humanity in its long history which might have spanned fifty thousand years or more, has seen on countless occasions individuals, groups and nations indulging in conflicts, violence and wars. Twentieth century opened the doors of civilizational excellence but also witnessed a series of destructive wars. First World War resulted in 17 million deaths. As if it was not enough,  some nations of the world indulged in second world war from 1939 to 1945, six long years, which caused the greatest loss of human lives amounting to six crore. It is estimated that world lost about 20 to 30 percent resources in these wars. The world economy lost its speed and humanity had to pay a heavy price for this. World could have seen more progress and prosperity if the leaders of the world had not indulged in those wars. After that we had a series of wars in Korea, Vietnam, Iraq, Iran, Afghanistan etc. The list is very long and unending. 
 
Besides this, internal and intra ethnic conflicts are also taking place in many countries. During last three months we have seen how more than 40 thousand people have been made to flee their hearth and home in Rakhine, Myanmar. UNESCO was correct when it asserted that the wars start in human minds, therefore it is in the human minds where the defences are to be made.
Our country India can play a very vital role in promoting world peace. It can also present a lively model of peaceful living with unity in diversity. With our 130 crore population which consists of different religious groups, hundreds of ethnicities and language groups can present a beautiful example of narrowing differences, conflict resolution and good mutual relations. The impending elections in UP and other states and continuing political rivalries and wrangles should not be allowed to spoil the atmosphere of communal amity and the task of building a peaceful and prosperous nation should not be lost sight of.        

Posted by: =?UTF-8?Q?Yahoo_Mail=2E=C2=AE?= <shah_abdul_hannan@yahoo.com>


https://ci3.googleusercontent.com/proxy/TqREGQOvPOVvVtkUcbu-5VB9OCll3YBoUlM1wKNJHnXCsQNhF103ydQ2I29gVUpHTcd8rfxvYBChxDg4Or0mCwxLIbxRnoGycPmaAwXtzayna2NMH615GNIKs3PJi24=s0-d-e1-ft#https://s.yimg.com/ru/static/images/yg/img/megaphone/1464031581_phpFA8bON
 
With 4.5 stars in iTunes, the Yahoo Mail app is the highest rated email app on the market. What are you waiting for? Now you can access all your inboxes (Gmail, Outlook, AOL and more) in one place. Never delete an email again with 1000GB of free cloud storage.

http://www.quran-al-mubeen.com

[Quran 14:1 Daryabadi] Alif. Lam. Ra. This is a Book which We have sent down unto thee, that thou mayest bring the mankind forth from the darknesses unto the light, by the command of their Lord: unto the path of the Mighty, the Praiseworthy. 

http://al-tanzil.com/

[Quran  24:40  Pickthall]  .............And he for whom Allah hath not appointed light, for him there is no light.
 
.
 




__._,_.___

Attachment(s) from Jiten Roy | View attachments on the web

2 of 2 Photo(s)


Posted by: Jiten Roy <jnrsr53@yahoo.com>


****************************************************
Mukto Mona plans for a Grand Darwin Day Celebration: 
Call For Articles:

http://mukto-mona.com/wordpress/?p=68

http://mukto-mona.com/banga_blog/?p=585

****************************************************

VISIT MUKTO-MONA WEB-SITE : http://www.mukto-mona.com/

****************************************************

"I disapprove of what you say, but I will defend to the death your right to say it".
               -Beatrice Hall [pseudonym: S.G. Tallentyre], 190





__,_._,___